SHARE
সুবিধাজনক স্থানে পশু কোরবানির ব্যবস্থা রাখা হবে

আসন্ন ঈদুল আজহায় সরকারের পক্ষ থেকে নাগরিকদের সুবিধা হয় এমন স্থানে কোরবানির পশু জবাইয়ের ব্যবস্থা রাখা হবে।

আজ বুধবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত কোরবানিতে পশু জবাই নিশ্চিত করার জন্য নির্ধারিত স্থান নির্বাচন-সংক্রান্ত সভা শেষে এ কথা জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেক।

যাঁরা পশু কোরবানি দেবেন, তাঁরা ধীরে ধীরে নির্দিষ্ট স্থানে পশু জবাই করতে অভ্যস্ত হয়ে উঠবেন বলে সভায় আশা প্রকাশ করেন সচিব।

আবদুল মালেক বলেন, গত বছর প্রথমবারের মতো নির্দিষ্ট স্থানে পশু কোরবানির ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এবার দ্বিতীয়বারের মতো নির্দিষ্ট স্থানে পশু কোরবানির ব্যবস্থা করা হবে। এভাবে প্রতিবছর চলবে। একসময় এটা একটা নিয়ম হয়ে দাঁড়াবে।

তবে নির্ধারিত স্থানে পশু কোরবানি দিতে কাউকে বাধ্য করা হবে না বলে জানান সচিব।

সভায় জানানো হয়, এ বছর কোরবানির পশু জবাইয়ের জন্য ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ৩২৪টি স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে। এ সংখ্যা আরো বাড়বে। মোট ২৭৫ জন কসাই এসব স্থানে কাজ করবেন। এ ছাড়া পশু কোরবানির জন্য ৩৬০ জন ইমামের তালিকা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।

এ ছাড়া ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ২০৪টি স্থান, ৩৩৬ জন ইমাম এবং ২০৫ জন কসাইয়ের নামের তালিকা করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে ৩৮৭টি স্থান,৭৫০ জন ইমামের তালিকা করা হয়েছে। খুলনা সিটি করপোরেশনে ১৫৫টি স্থান, ১৭০ জন ইমাম এবং ১৫০ জন কসাইয়ের তালিকা করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে ১৯০টি স্থানে দায়িত্ব পালন করবেন ২৯০ জন ইমাম।

রাজশাহী সিটি করপোরেশনে ১৫০টি স্থান নির্বাচিত হয়েছে। এখানে কাজ করবেন ২৫০ জন ইমাম। অন্যদিকে সিলেট সিটি করপোরেশনে এখন পর্যন্ত ২৭টি স্থান এবং ৭৫০ জন ইমামের তালিকা করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here