SHARE
বার্নিকাট
বার্নিকাট

বাংলাদেশস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বস্নুম বার্নিকাট বলেছেন, আমরা বিশ্বাস করি শ্রমিকদের জোরালো ও শক্তিশালী মত প্রকাশের অধিকার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তারা যেন বলতে পারে, ‘আমরা এমন ফেটে যাওয়া ভবনে কাজ করব না।’ তাদের সেই মতামত যেন শোনা হয় এবং সম্মান করা হয়।
রানা প্লাজার দুঃখজনক ভবনধস নিরাপদ কর্মপরিবেশ তৈরি ও শ্রমিকদের অধিকার নিশ্চিত করার জন্য সরকারি কর্মকর্তা, শ্রমিক, কারখানা মালিক এবং ভোক্তা হিসাবে আমাদের ওপর সম্মিলিত দায়িত্ব অর্পন করেছে বলেও উল্লেখ করেন এ রাষ্ট্রদূত।
রানা প্লাজা ভবস ধসের তিন বছর পূর্তি উপলক্ষে গতকাল রোববার দেয়া এক বিবৃতিতে তিনি একথা বলেন। রাষ্ট্রদূত বলেন, তিন বছর আগে রানা প্লাজা ভবনটি ধ্বসে পড়ে, এর নিচে চাপা পড়ে অগণিত শ্রমিক। একদিনে বাংলাদেশে এগারোশ’র বেশি শ্রমিক প্রাণ হারায়। এই ঘটনা বাংলাদেশের তৈরি পোশাক খাতের প্রতি বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। ওইদিন যারা বেঁচে গিয়েছিলো তাদের জীবন সংগ্রাম এখনো অব্যাহত রয়েছে। আজকের এই বর্ষপূর্তিতে আমরা তাদের দুঃখের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করছি। তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার ইতোমধ্যে নতুন শত শত ইউনিয়নের নিবন্ধন দিয়েছে। আমরা শ্রমিকদের প্রতি আহবান জানাই তারা যেন গণতান্ত্রিকভাবে তাদের নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য কমিটির প্রতিনিধি নির্বাচন করেন, যাতে তাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুরক্ষিত থাকে।
বার্নিকাট বলেন, গত তিন বছর ধরে তিন হাজার ৬০০’র বেশি কারখানার নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩৯টি ঝুঁকিপূর্ণ কারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বিশ্বের যে কোনো প্রান্ত থেকে আগ্রহীরা বাংলাদেশের কারখানা নিরাপত্তাজনিত তথ্য ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পেতে পারে। শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় ২০০’র বেশি পরিদর্শক নিয়োগ ও তাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছে। এছাড়া একটি টোলমুক্ত হেল্পলাইন টেলিফোন চালু করেছে। এই সব কিছুই চমৎকার অর্জন, যা জীবন রক্ষা করতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here