SHARE
মালয়েশিয়ায় বৈধ হওয়ার সেরা সুযোগ
মালয়েশিয়ায় বৈধ হওয়ার সেরা সুযোগ

মালয়েশিয়ায় অবৈধ বাংলাদেশিদের ই-কার্ড নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে তাকে বৈধ হওয়ার ‘সেরা সুযোগ’ বলে মন্তব্য করেছেন সে দেশে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাই কমিশনার মো. শহীদুল ইসলাম।

মঙ্গলবার বিকালে কুয়ালালাপুরে বাংলাদেশ হাই কমিশনের হলরুমে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় কালে তিনি এ পরামর্শ দেন।

তিনি বলেন, “মালয়েশিয়ায় বিদেশি অবৈধ শ্রমিকদের বৈধকরণে চলমান রি-হায়ারিং প্রকল্পের আওতায় ই-কার্ড গ্রহণ করে মালয়েশিয়ায় বৈধভাবে কাজ করার সেরা সুযোগ এটি।”

বাংলাদেশিদের এই সুযোগ হাতছাড়া না করার আহ্বান জানিয়েছে তিনি বলেন, “সময় ক্ষেপণ না করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ই-কার্ড নিয়ে ইমিগ্রেশনের ধরপাকড় থেকে রক্ষা পান।”

তিনি জানান, এই সুযোগে বাংলাদেশি সাড়ে তিন লাখের বেশি শ্রমিক মালয়েশিয়ায় বৈধ হতে পারবেন। ই-কার্ড নিয়ে পাসপোর্ট করার জন্যে হাই কমিশনে আসলে তাদের দ্রুত পাসপোর্ট দেওয়ার ঘোষণা দেন শহীদুল।

গত এক বছর ধরে চলমান রি-হায়ারিং প্রক্রিয়ায় এক লাখ আটাশি হাজার বাংলাদেশি ইতোমধ্যে বৈধ হওয়ার জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন বলে জানান তিনি।

হাই কমিশনের শ্রম কাউন্সিলর সায়েদুল ইসলাম জানান, ই-কার্ড কর্মসূচি মালয়েশিয়া সরকার কর্তৃক গত ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে চালু হওয়া রি-হায়ারিং কর্মসূচির সহায়ক একটি কর্মসূচি।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া ই-কার্ড প্রদান কর্মসূচি চলবে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত। ৩০ জুনের মধ্যে যখনই কার্ড করুক, এর মেয়াদ থাকবে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ সাল পর্যন্ত। এই সময়ের মধ্যে যাদের পাসপোর্ট নেই তারা হাই কমিশন থেকে পাসপোর্ট করে তারপর রি-হায়ারিং এর আওতায় ভিসা করতে পারবেন।

তবে তিন শ্রেণির শ্রমিক ই-কার্ডের পাবেন না। তারা হলেন, এক- পূর্বে মেডিকেল আনফিট, দুই- যাদের বিরুদ্ধে মালয়েশিয়ায় কোন আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বা কোন চলমান মামলা আছে, তিন- যে কর্মী আগে বৈধভাবে কর্মরত ছিলেন, কিন্তু মালিককে অবহিত না করে পালিয়ে গেছেন এবং মালিক তার বিরুদ্ধে ইমিগ্রেশনে অভিযোগ দাখিল করেছে।

বাকি সব শ্রমিক মালিকসহ সরাসরি পুত্রজায়া ইমিগ্রেশন হেড কোয়ার্টার বা ১২টি প্রাদেশিক ইমিগ্রেশন অফিসে ই-কার্ডের জন্যে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন। যাদের কোন ধরণের কাগজপত্র নেই তারাও পারবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here