SHARE
ফেসবুক
ফেসবুক

যুক্তরাষ্ট্রের সানফ্রান্সিসকোয় ১২ ও ১৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হলো ফেসবুক ডেভেলপার সম্মেলন এফ৮। উদ্বোধনী বক্তব্যে জাকারবার্গের কণ্ঠে আত্মবিশ্বাস ছিল অনেক বেশি, লক্ষ্য যেন সাফ সাফ দেখতে পাচ্ছিলেন তিনি। এফ৮ সম্মেলনের মঞ্চে উঠে মার্ক জাকারবার্গ বললেন, ‘আগামী ১০ বছরের পরিকল্পনা উপস্থাপন করতে যাচ্ছি আমি।’ ঠিক এক যুগ আগে ফেসবুক প্রতিষ্ঠার সময় জাকারবার্গ একই কথা জানিয়েছিলেন। তখন তিনি বলেছিলেন, ‘আমাদের যেতে হবে বহু দূর।’ লিখেছেন আহমেদ ইফতেখার

সান ফ্রান্সিসকোর ফোর্ট ম্যাসন সেন্টারে ডেভেলপারদের নিয়ে গত মঙ্গল ও বুধবার অনুষ্ঠিত হলো ফেসবুকের বার্ষিক ডেভেলপার সম্মেলন। এতে দুই হাজারের বেশি ডেভেলপার প্যানেল আলোচনার সময় উপস্থিত হয়ে ফেসবুকের কর্মকর্তাদের কাজ সম্পর্কে ধারণা নেন। ফেসবুকের প্রাপ্যতা ও স্বচ্ছতা দীর্ঘ দিন ধরেই ডেভেলপার কমিউনিটিতে শ্রদ্ধা পেয়ে আসছে। নিউ ইয়র্কের ফ্ল্যাটিরন স্কুলের সহপ্রতিষ্ঠাতা এভি ফ্লোমবাম বলেন, ডেভেলপারদের জন্য ধারাবাহিকভাবে ভালো ইকোসিস্টেম তৈরি ও প্রচুর বিনিয়োগ করেছে ফেসবুক। তারা দারুণ কাঠামো গড়ে তুলেছে এবং ডকুমেনটেশন সিস্টেমও দারুণ। যারা এফ৮ সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন, তারা ফেসবুকের সর্বশেষ ফিচারগুলো কিভাবে যুক্ত করা যাবে তা জানতে পারবেন।
সম্মেলনে জাকারবার্গের ১০ বছরের পরিকল্পনার মূলকথা হলো, বিশ্বকে বাঁধতে হবে এক সুতোয়, মানুষকে দিতে হবে যোগাযোগের স্বাধীনতা। এই যোগাযোগ বাড়াতে সম্মেলনে ফেসবুকের নতুন কিছু সুবিধা চালুর ঘোষণা দেয়া হয়। এফ৮ সম্মেলনে জাকারবার্গের বক্তব্য ফেসবুক লাইভ ভিডিওর মাধ্যমে দেখেছেন বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ। জাকারবার্গের ফেসবুকের নতুন সব সুবিধার ঘোষণা দেন ফেসবুকের ডেভেলপার প্ল্যাটফর্ম গ্রুপের প্রধান দেব লিউ, স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপের এক পরিচালক ইমি আর্চিবং, ফেসবুকের মেসেঞ্জার গ্রুপের প্রধান ডেভিড মার্কাস এবং ফেসবুকের প্রধান পণ্য কর্মকর্তা ক্রিস কক্স। সম্মেলনে নতুন কিছু সেবার ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ।

লাইভ এপিআই
সম্মেলন চলাকালে জাকারবার্গের বক্তব্যের সময়ই মঞ্চে কোত্থেকে যেন উড়ে আসে এক ড্রোন। বড় পর্দার ছবি বদলে সেখানে মঞ্চের সরাসরি ভিডিও প্রচার করতে শুরু করে। ফেসবুকে লাইভ ভিডিও শেয়ার করার সুযোগ বেশ সফল বলা চলে। ব্যক্তিগত ব্যবহারকারীর জন্য সুবিধাটি চালু হলেও এখন থেকে অন্যান্য যন্ত্রের সফটওয়্যার নির্মাতারাও লাইভ এপিআই কাজে লাগিয়ে যেকোনো যন্ত্র থেকে সরাসরি ফেসবুকে ভিডিও প্রচারের সুযোগ দেবেন।

মেসেঞ্জার প্ল্যাটফর্ম
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, ভার্চুয়াল রিয়্যালিটি প্রযুক্তির পর এখন ফেসবুক উঠেপড়ে লেগেছে স্বয়ংক্রীয় বট নিয়ে। মেসেঞ্জার প্ল্যাটফর্মের অংশ হিসেবে নতুন চ্যাটবটের ঘোষণা দেয়া হয়। স্বয়ংক্রীয় এই বটগুলো প্রতিষ্ঠানের পক্ষে গ্রাহকদের সাথে প্রয়োজনীয় আলাপ সেরে নিতে পারবে। উদাহরণ হিসেবে বলা যেতে পারে, ফুল কেনার জন্য ফোন করার প্রয়োজন পড়বে না, মেসেঞ্জারে জানিয়ে দিলেই হলো। সেখানে স্বয়ংক্রীয়ভাবে প্রশ্ন করে জেনে নেয়া হবে আপনার ফুলের রং, পরিমাণ, জাত ইত্যাদি।

ফেসবুক সারাউন্ড ৩৬০
নতুন থ্রিডি ৩৬০ ডিগ্রি ক্যামেরার ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক। ফেসবুক সারাউন্ড ৩৬০ নামের এই যন্ত্রের ১৭টি ক্যামেরা চার দিকের চমৎকার ত্রিমাত্রিক ছবি ধারণ করতে পারে।

ইনস্ট্যান্ট আর্টিক্যাল
শুরুতে অল্প কিছু সংবাদমাধ্যমের জন্য পরীক্ষামূলক হিসেবে ‘ইনস্ট্যান্ট আর্টিক্যাল’ নামের সুবিধা চালু ছিল। সুবিধাটি এখন সব প্রকাশকের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। ইউটিউবে অন্যের ভিডিও নিজের বলে চালিয়ে দেয়ার সুযোগ না থাকলেও ফেসবুকে কাজটি অহরহ হচ্ছে। তবে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এখন থেকে এ ধরনের মেধাস্বত্ব সংরক্ষণের জন্য উদ্যোগ নেবে বলে জানিয়েছে। অনেক উচ্চতা থেকে ইন্টারনেট ছড়িয়ে দেয়ার জন্য চালকবিহীন ড্রোনের ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

ফেসবুকের জন্য গুরুত্বপূর্ণ দেশ ভারত
ফেসবুকের স্ট্র্যাটেজিক পার্টনারশিপের পরিচালক আয়েমি আর্কিবং গত ১১ মাসের মধ্যে ১০ বার ভারতে গেছেন। তিনি জানান, ফেসবুকের জন্য গুরুত্বপূর্ণ দেশ হিসেবে শীর্ষে রয়েছে। ফেসবুকের স্বয়ংক্রীয় ব্যবহারী হিসেবে দ্বিতীয় বৃহত্তম বাজার ও দ্রুত বর্ধিষ্ণু ইন্টারনেট বাজার হিসেবে শীর্ষে আছে ভারত। গত বছর ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গও ফেসবুকের ইন্টারনেট ডট ওআরজি প্রকল্প নিয়ে কথা বলতে ভারত ঘুরে গেছেন। ওই সময় তিনি বলেছিলেন, আমাদের মিশন হচ্ছে বিশ্বের সবাইকে ইন্টারনেট সুবিধার আওতায় আনা। ভারতের মানুষকে ইন্টারনেট সংযোগের আওতায় আনা ছাড়া তা প্রায় অসম্ভব।
শুধু অধিকসংখ্যক মানুষকে ফেসবুকে আনাটাই ফেসবুক কর্তৃপক্ষের মূল লক্ষ্য নয়। যুক্তরাষ্ট্রের পর ফেসবুকের জন্য দ্বিতীয় বৃহত্তম ডেভেলপার হাব বা স্থান হচ্ছে ভারত। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ব্যবসায় নেতৃত্ব ও উদ্যোক্তাদের ব্যবসায় বাড়াতে সমর্থন ও সাহায্য করার কথা বলছে। আর্কিবং বলেন, ‘আমাদের তৈরী সেবা বিশ্বের ১৬০ কোটি মানুষের কাছে পৌঁছায়। কিন্তু ডেভেলপারেরা কার্যকর ও দরকারি টুল তৈরি করতে পারেন, যা সত্যিকার অর্থেই বৈশ্বিক হয়ে উঠতে পারে।’
আর্কিবং ও এডি ওনেইল ফেসবুকের ডেভেলপার রিলেশন উদ্যোগগুলোর দু’টি মূল বিষয় নিয়ে কাজ করেন। আর্কিবং কতজন মানুষের কাছে পৌঁছাল এবং এর সাথে মানুষ কতটা যুক্ত হলো, সে বিষয়টি দেখেন আর স্ট্র্যাটেজি ও কমিউনিটি পণ্য নিয়ে কাজ করেন ওনেইল। আর্কিবংয়ের টিম যে প্রতিবেদন ও প্রতিক্রিয়া প্রতিবেদন পাঠায়, সে অনুযায়ী ওনেইলের টিম তা তৈরিতে কাজ করে।
ফেসবুকের বার্ষিক ডেভেলপার সম্মেলন ঘিরে ডেভেলপারদের মধ্যে উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা যায়। ওনেইল বলেন, ‘পরবর্তী ১০০ কোটি মানুষ মোবাইল ফোন ও অনলাইনে যেতে শুরু করেছে, এদের মধ্যে ডেভেলপাররা আমাদের পণ্য ও সেবা ব্যবহার করতে এবং গ্রাহকেরা অভিজ্ঞতা নিতে পারেন।’
আর্কিবং বলেন, ফেসবুকের ডেভেলপারদের নিয়ে কাজ করার জন্য কর্মী বেড়েছে। কর্মীরা ডেভেলপারদের মধ্যে কারিগরি ও সাংস্কৃতিক পার্থক্য, ভিন্ন সুযোগ ও চ্যালেঞ্জের সামনে দাঁড়ানো ডেভেলপার নিয়ে কাজ করেন। এই আয়োজন সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন www.fbf8.com সাইটে।

 

Comments

comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here