SHARE
মেয়র আনিসুল হক
মেয়র আনিসুল হক
নতুন আরো পাঁচ হাজার ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানোর ঘোষণা দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক। নির্বাচনী ওয়াদা হিসেবে নাগরিকদের নিরাপত্তার স্বার্থে এসব ক্যামেরা লাগানো হবে বলে জানান তিনি।
শুক্রবার রাজধানীর গুলশানে বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের কর্পোরেট হেড অফিস জিপি হাউজে প্রথমবারের মতো আয়োজিত ‘স্মার্ট সিটি হ্যাকাথনের’ উদ্বোধনকালে মেয়র এসব কথা বলেন।
মেগাসিটি ঢাকার বাস্তব সমস্যার ডিজিটাল সমাধান করতে প্রেনুয়ার ল্যাব ও গ্রামীণফোনের ইনোভেশন সেন্টার হোয়াইট বোর্ড ৩৬ ঘণ্টার হ্যাকাথনের আয়োজন করা হয়।
আনিসুল হক বলেন, নির্বাচনের আগে জনগণের কাছে কথা দিয়েছিলাম জানমালের নিরাপত্তায় বিভিন্ন এলাকায় ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা লাগাবো। আমরা ইতোমধ্যে বিভিন্ন ব্যক্তি, সংগঠন ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় পুলিশের সঙ্গে মিলে গুলশান বনানী তথা কূটনৈতিক এলাকায় ৬৫৬টি ক্যামেরা লাগিয়েছি। আরো ৫০০ এর মতো ক্যামেরা লাগানোর কাজ চলমান রয়েছে।  এছাড়া আমরা আরো ৫ হাজার ক্যামেরা কেনার কথা ভাবছি এবং সেটাও উত্তর সিটি সীমানার বিভিন্ন এলাকায় লাগাবো।
মেয়র বলেন, সব বাস কোম্পানিকে একত্রে ছয়টি কোম্পানি করে ৬ রংয়ের বাস করার চিন্তা-ভাবনা আছে। এতে বাস ব্যবস্থাপনা সহজ হবে। অনেক সময় আমার মা-বোনরা বাসে উঠতেই পারছেন না। এসব সমস্যা নিরসনের জন্য ৫শ’ কোম্পানির ৫ হাজার বাস ৬টি কোম্পানির আওতায় নিয়ে আসা হবে। ফলে প্রতিযোগিতা কমে যাবে। কারণ কোম্পানিগুলো নিজ নিজ লভ্যাংশ পাবে।
মেয়র বলেন, আমাদের দেশের মেধাবী সন্তানরা কাজ করছেন বিশ্বের বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে। মাইক্রোসফট-এ কর্মরত মেধাবী তরুণ জামিলের মাধ্যমে আমরা ‘নগর’ এ্যাপটি তৈরি করি। এর মাধ্যমে যে কেউ ইচ্ছে করলে নগরের যেকোনো সমস্যা আমাদের ছবি তুলে পাঠিয়ে দিতে পারেন। সে অনুযায়ী আমরা ব্যবস্থা নেবো।
তিনি বলেন, এ্যাপসটিতে যে বিশেষ সিকিউরিটি অপশন রাখা হয়েছে তা বিশ্বের কোনো এ্যাপসে নেই। এর কল্যাণে যেকেউ বিপদে পড়লে তা তার অভিভাবককে জানাতে পারবেন মাত্র ৫ সেকেন্ডে। অ্যাপে ৫ সেকেন্ড চেপে ধরলেই সংকেত পৌঁছে যাবে। শুধু তাই নয়, পাশপাশি বিপদ সংকেতটি চলে যাবে পুলিশ কন্ট্রোল রুমেও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here